নিজের প্রেম নিয়ে মুখ খুললেন দীঘি

একসময়ের জনপ্রিয় টিভি বিজ্ঞাপন ছিলো দীঘির ‘বাবা জানো, আমাদের একটি ময়না পাখি আছে না, সে আজকে আমাকে নাম ধরে ডেকেছে। আর এ কথাটা না মা কিছুতেই বিশ্বাস করছে না’- আদুরে কণ্ঠে এ কথাগুলো।

এই বিজ্ঞাপনটিতে দীঘির মিষ্টি কথাগুলো হৃদয় ছুঁয়ে যায়নি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। বাবা-মেয়ের এ বিজ্ঞাপন সবাইকে আবেগে ভাসিয়েছিল।

একটি মোবাইল কোম্পানির সেই বিজ্ঞাপন থেকে শিশুশিল্পী হিসেবে বড় পর্দায় সারা দেশ মাতিয়েছিলেন প্রার্থনা ফারদিন দীঘি। মা নায়িকা দোয়েল, বাবা নায়ক থেকে অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়া সুব্রত।

বাবা-মায়ের পথ ধরে দেশের স্বনামধন্য সব জুটির সঙ্গে ‘চাচ্চু’, ‘দাদী মা’, ‘পাঁচ টাকার প্রেম’সহ একের পর এক হিট ছবিতে মনকাড়া অভিনয় করে চলচ্চিত্রের দর্শকমন জয় করেছেন। সে সময়ই তারকা বনে যান দীঘি। পাঁচ থেকে ছয় বছরের মধ্যে ৩৬টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন শিশুশিল্পী দীঘি।

সেই শিশুশিল্পীই এবার নায়িকা হয়ে আসছেন। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে এফডিসিতে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিঞা ভাই’ নামে একটি ছবির শুটিংয়ের মাধ্যমে তার নায়িকা হিসেবে যাত্রা শুরু হয়। এ ছবিতে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন নবাগত শান্ত খান। এটি ছাড়াও আরো পাঁচটি ছবিতে অভিনয়ের কথা রয়েছে দীঘির।

তবে প্রশ্ন হচ্ছে, নায়িকা হলেই তাদের প্রেম বা বিয়ে নিয়ে গুঞ্জন রটে। দীঘির ক্ষেত্রে কি একই রটনা রটেছে?

এই প্রশ্নের উত্তরে দীঘি গণমাধ্যমকে বলেন, নায়িকা তো মনে হয় সব মিলিয়ে দুই মাস হলো হলাম। সেপ্টেম্বরে শুটিং শুরু করেছি, সব মিলিয়ে দুই মাস হলো নায়িকা হলাম। প্রেমের গুঞ্জনটা আসতে বছরখানেক লেগে যায়। এখনো আমার নামে এমন কিছু নিজে শুনিনি। তো আমার মনে হয়, আমি শোনার আগে আপনারা সাংবাদিক ভাইয়েরা, আমাদের আগে ভালো শুনতে পারেন। আপনাদের কাছে চলে যায় বা আপনাদের কাছে এমন গসিপ চলে যায়। আপনারা জানলে আমাকে আগে জানাবেন, তাহলে আমি বেশি খুশি হব।

এদিকে, দীঘিকে নিয়ে ‘ধামাকা’ নামে একটি ছবি পরিচালনা করবেন মালেক আফসারী। অন্যদিকে ‘যোগ্য সন্তান’ নামে আরেকটি ছবি নির্মাণের দায়িত্ব নিয়েছেন কাজী হায়াৎ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*