ভালোবেসে ১৭ বছরের তরুণীকে বিয়ে, অন্তঃসত্ত্বা জেনে তালাক বৃদ্ধের

পিরিতে মজিলে মন কিবা হাড়ি কিবা ডোম। প্রেম মানে না জাত কুল। ‘ভালোবাসার ফাঁদ পাতা ভূবনে, কখন কে ধরা পড়ে কে জানে।’ প্রেমে পড়লে বৃদ্ধও হয়ে উঠে টগবগে তরুণ।

সেটাই প্রমাণিত হলো ইন্দোনেশিয়ায়। ৭৮ বছর বয়সী ইন্দোনেশিয়ার এক বৃদ্ধ মাত্র ১৭ বছর বয়সী কিশোরীর সঙ্গে ভালোবেসে ঘর বাঁধলেন। তবে বৈবাহিক সম্পর্কের আয়ু মাত্র ২২ দিন। তারপরই হলো বিচ্ছেদ।

সম্প্রতি আবাহ সারনা নামের ওই বৃদ্ধা তরুণী ননি নভিতার প্রেমে পড়েন। দুই পরিবারের মধ্যে কথাবার্তার পর বিয়েও করেন তারা। বয়সের ব্যবধানের জন্যই আবাহ ও ননি নভিতার বিয়ের খবর এখনও সবার মুখে মুখে।

ননির পরিবারের দাবি, সুখেই ছিলেন তাদের বাড়ির মেয়ে। বয়সের ব্যবধান থাকলেও প্রেমের জোয়ারে যেন ভেসে বেড়াচ্ছিলেন দুজনে। উথালপাতাল প্রেমের সাগরে যেন হাবুডুবু খাচ্ছিলেন তারা।

কথায় বলে সুখ চিরস্থায়ী হয় না। তাই তো সুখের দিনেও এমন কিছু ঘটে যা সকলকে কাঁদিয়ে যায়। ঠিক যেমন ঘটল ননির সঙ্গে। হঠাৎই একদিন আবাহর পাঠানো বিবাহবিচ্ছেদের কাগজপত্র হাতে এসে পৌঁছায় তার।

তাও আবার বিয়ের ২২ দিনের মাথায়। স্বামী এটা করতে পারেন, তা আগে ভাবেননি ননি। তাই প্রথমে বাকরুদ্ধ হয়ে যান। অঝোরে কাঁদতে থাকেন। তার স্বজনদের দাবি, বিবাহবিচ্ছেদের কাগজপত্র হাতে পাওয়ার পর সারাদিন পানি পর্যন্ত খাননি ননি।

কিন্তু কেন এমন সিদ্ধান্ত নিলেন ননির স্বামী? শোনা যাচ্ছে বিয়ের আগেই নাকি অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন ননি। স্বামী তা জানতেন না। জানার পরই বিচ্ছেদের পথে হাঁটেন তিনি। তবে তা মানতে নারাজ ননির পরিবার।

প্রেমের সাগরে ভাটার টান আর স্বামীর সঙ্গে বিচ্ছেদের দুঃখকে সঙ্গী করেই আপাতত দিন কাটছে ননির।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*