মুখের উজ্জ্বলতা ফেরাতে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে করুন ঘরোয়া ব্লিচিং

ঘরে বসেই উজ্জ্বল ত্বকের মালকিন হওয়ার একদম সহজ ও দারুণ টিপস! এগুলো নিয়মিত মেইন্টেইন করে আপনিও হয়ে যান উজ্জ্বল, লাবণ্যময়ী ত্বকের অধিকারীনী।প্রাকৃতিক ব্লিচ টমেটোর র জানেন কি, টমেটো আপনার ত্বকে প্রাকৃতিক ব্লিচের কাজ করে?

আপনার ত্বককে উজ্জ্বল করে এক ধরণের শাইনিং ভাব এনে দিতে টমেটোর রসের জুড়ি নেই। তাই মুখে, গলায়, ঘাড়ে, হাতে, পায়ে নিয়মিত ব্যবহার করুন টমেটোর রস। গোটা একটা টমেটো পেস্ট করে মাখুন সব জায়গায়।

টমেটো ফেস প্যাক: রোজ সময় করে করুন। এটি রোজ যদি করতে থাকেন, তাহলে একমাসে দেখবেন ত্বকের আমূল পরিবর্তন। অয়লি ত্বক যাদের তারা শুধুমাত্র সপ্তাহে দুবার এটি ব্যবহার করবেন। আপনার ত্বকের পরিবর্তনটা আপনি নিজেই বুঝতে পারবেন কিছুদিনের মধ্যে।

লেবুর রস: লেবুর রসের সাইট্রিক এসিড আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতাই শুধু বৃদ্ধি করে না, বরং ত্বককে স্থায়ীভাবে উজ্জ্বল করে তোলে।

মুখের লেবু লাগানো: রাতের বেলায় ঘুমানোর আগে একটা লেবু রস করে ম্যাসাজ করে নিন। ঘন্টাখানেক পর ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন। তবে ভুলেও কিন্তু এটা দিনের আলোতে ব্যবহার করতে যাবেন না। সপ্তাহে তিনবার করে ট্রাই করুন। অয়লি ত্বক হলে একবার করে করুন সপ্তাহে।কারণ লেবুর রস লাগিয়ে আপনি রোদের মধ্যে গেলে ত্বকের রঙ উজ্জ্বল হওয়ার বদলে উল্টো কালো হয়ে যেতে পারে কিন্তু!

কাঁচা হলুদ ও দুধ ব্যবহার করতে পারেন: হলুদ মেশানো দুধ খাচ্ছেস্থায়ীভাবে উজ্জ্বল হতে চাইলে দুধের সাথে কাঁচা হলুদ মিশিয়ে খেতে হবে আপনাকে।এক গ্লাস দুধের সাথে এক টুকরো কাঁচা হলুদ বাটা মিশিয়ে নিন। অথবা বাটাবাটির ঝামেলায় যেতে না চাইলে আপনি এক গ্লাস দুধ গরম করতে বসিয়ে তার ভেতর এক টুকরো কাঁচা হলুদ দিয়ে দিতে পারেন।

এবার দুধটা গাঢ় হলুদ রঙ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। হলুদ রঙ হয়ে গেলে দুধ নামিয়ে একটু ঠান্ডা করে, খেয়ে নিন।এভাবে শুধু দুধ আর হলুদ খেতে না চাইলে আপনি প্রয়োজন মতো চিনি বা মধুও মিশিয়ে নিতে পারেন। রোজ খাবেন নিয়ম করে। এই পানীয়টি নিয়মিত পান করলে আপনার ত্বক ভেতর থেকে হয়ে উঠবে উজ্জ্বল।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*