এই কন্যার জন্ম ঢাকার একটি হাসপাতালে

‘এই কন্যার জন্ম ঢাকার একটি হাসপাতালে। জন্মের পর জগতের আলো দেখতে অনেক কষ্ট করতে হয়েছে তাকে। কন্যাকে আমরা প্রথম দেখি ইনকিউবেটর নামের এক আলো ছড়ানো কাচের ঘরে। পরিবারে তার আগমন যেমন আনন্দের, তেমনই উৎকণ্ঠারও ছিল। প্রসব যন্ত্রণায় কাতর মেজোআপা (দোয়েল) বার বার জানতে চাইতেন, তার মেয়ে কোথায়-কেমন আছে?’

এভাবে কথাগুলো লিখেন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির (বাচসাস) সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইকবাল করিম নিশান।

কিন্তু মেয়েটি কে? এ প্রশ্নের উত্তর দিয়ে তিনি আরো লিখেন, ‘এই মেয়েটি আমাদের কন্যা দীঘি। শিশু দিঘীর তারকা খ্যাতি কাছ থেকে দেখেছেন মা। নায়িকা দিঘীকে দেখে যেতে পারেননি তিনি! দেখছেন দীঘির বাবা সুব্রত, দেখছি আমরা। দেখছেন অনেকে। হয়তো ওপার থেকে দোয়েল আপাও দেখছেন, দোয়া করছেন।’

শিশুশিল্পী ও নায়িকা দীঘির জন্মদিন। তাকে শুভেচ্ছা জানাতে এসব কথা লিখেন নিশান। শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি লিখেন, ‘দীঘি, জন্মদিনে তোমার জন্য অনেক ভালোবাসা আর দোয়া। তথাকথিত সেলিব্রেটির তকমা নয়, নিজে আলোকিত হও, জগত আলোকিত করো। মানবিক মানুষ হও এই জগত-সংসারে। লাভিউ মা।’

জন্মদিনকে ঘিরে বিশেষ কোনো আয়োজন রাখেননি দীঘি। এ প্রসঙ্গে দীঘি বলেন, ‘এখন বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটাচ্ছি। ২০০৯ সালে সর্বশেষ মা-বাবার সঙ্গে আড়ম্বরপূর্ণ জন্মদিন উদযাপন করেছি। এর পরে আর ওইভাবে উদযাপন করা হয়নি। এবারো তেমন কোনো আয়োজন রাখিনি। অনেকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।’

দীঘি শিশু শিল্পী হিসেবে তারকা খ্যাতি পেয়েছেন। সম্প্রতি ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’ সিনেমার মাধ্যমে প্রথম চলচ্চিত্রে পা রাখেন। এটি শেষ না হতেই আরো দুটি সিনেমার কাজ শুরু করেন এই নায়িকা। দেলোয়ার জাহান ঝন্টুর ‘তুমি আছো তুমি নেই’ ও কাজী হায়াতের ‘যোগ্য সন্তান’ সিনেমার কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন দীঘি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*