তৈমুর জন্মানোর পরে পুরনো ত্বন্বী চেহারায় যেভাবে ফিরেছিলেন কারিনা

দ্বি’তীয় বার মা হতে চলেছেন অভি’নেত্রী কারিনা কাপুর। লকডাউনের মধ্যেই এই সুখবর ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করেছেন সাইফরিনা। প্রথম বার গর্ভধারণের সময়ে বেশ কিছুটা ওজন বেড়েছিল কারিনার।

তবে সেই মেদ নিয়ে মোটেই লজ্জ্বা পাননি বলিউডের বেবো। বরং আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বেবি বাম্প নিয়ে কফি উইথ করণে হাজির হয়েছিলেন তিনি। মুখেও জমেছিল মেদ। তবে সেসব তোয়াক্কা করেননি অভিনেত্রী।

তবে তৈমুর জন্মানোর পরে পুরনো ত্বন্বী চেহারায় তাঁর ফিরতেও বেশি সময় লাগেনি। ছবির শ্যুটিং-এর জন্য ওজন কমানো তখন তাঁর প্রয়োজন ছিল। ওজন কমানোর জন্য তিনি নিয়েছিলেন এক অভিনব কৌশল।

এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, কোনও তাড়াহুড়ো করেননি কারিনা। প্রসবের প্রায় ৪০ দিন পর থেকে ওজন কমানোর জন্য সচেষ্ট হয়েছিলেন অভিনেত্রী।

হালকা এক্সারসাইজের পাশাপাশি যোগ ব্যয়ামও শুরু করেছিলেন। পিলেটস বা পেটের মেদ কমানোর জন্য বিশেষ ব্যয়াম শুরু করেছিলেন প্রসবের ৪০দিন পরে। সেই সঙ্গে ডায়েটিসিয়ান রুজুতা দিওয়াকরের পরামর্শও মেনে চলেছিলেন তিনি।

এই সব কৌশলে প্রথমে ১২ কেজি ওজন কমিয়েছিলেন কারিনা। কারণ তার কিছুদিনের মধ্যেই শুরু হচ্ছিল ভিরে দি ওয়েডিং-এর শ্যুটিং। তবে শ্য়ুটিং শুরুর পরেও শ’রীরচর্চা ও সঠিক ডায়েট মেনে ওজন কমিয়েছিলেন তিনি।

কারিনা
ডায়েটিশিয়ান রুজুতা দিওয়াকর জানিয়েছিলেন, কারিনা তাঁকে বলেছিলেন যে, তিনি রাতারাতি রো’গা হতে চান না। কারণ নিছক ওজন কমানো তাঁর লক্ষ্য নয়। তিনি চান ভালো থাকতে, খুশি থাকতে, এবং এনার্জেটিক হয়ে উঠতে।

রুজুতা জানিয়েছিলেন, সন্তানের জন্মের পরে যে ভাবে ধীরে ধীরে ওজন কমানোর পরি’ক’ল্পনা করেছিলে’ন কারিনা, তা বেশ অভিনব। কারণ অধিকাংশ নায়িকাই নাকি তড়িঘড়ি রোগা হতে চান। অথচ গ’র্ভধা’রণের পরে ধীরে ধীরে ওজন ক’মানোই রো’গা হওয়ার স্বা’স্থ্যস’ম্মত পদ্ধ”তি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*