নায়ক জসিমের স্ত্রী-সন্তানের এখন যেমন আছেন

জহিরুল হকের ‘রংবাজ’ ছবির মধ্য দিয়ে ১৯৭৩ সালে প্রথম অ্যাকশন দৃশ্যর প্রচলন শুরু হয়। সেখানে ভিলেন চরিত্রে অভিনয় করে সবার দৃষ্টি কেড়েছিলেন নায়ক জসিম।

এই খলনায়ক একটা সময় নায়ক হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন এবং তুমুল জনপ্রিয়তা পান। নায়িকা শাবানা ও রোজিনার সঙ্গে সবচেয়ে বেশি সুপারহিট সিনেমা তিনি উপহার দিয়েছেন।

চলচ্চিত্রের এক সময়ের প্রতাপশালী অভিনেতা জসিম মৃত্যুবরণ করেছেন ২২ বছর হলো। ১৯৯৮ সালের ৮ অক্টোবর মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করেছিলেন জসিম। নায়কের জন্ম-মৃত্যু দিন উপলক্ষে কোনো অনুষ্ঠান-উৎসব হলে অল্প কিছু সময়ের জন্য দেখা মিলেছে জসিমের পরিবারের সদস্যদের। তবে সবসময়ই তারা নিজেদের আড়াল করেই রেখেছেন।

ঢাকাই সিনেমার একসময়ের সুপারস্টার জসিমের স্ত্রী-সন্তান কেমন আছে, তা অনেকটা অজানা। কিন্তু জানতে চান নায়কের ভক্তরা, সিনেমাপ্রেমীরা।

জসিম প্রথম ভালোবেসে বিয়ে করেছিলেন চিত্রনায়িকা সুচরিতাকে। সেই সংসার খুব বেশিদিন টেকেনি। এরপর জসিম বিয়ের মালা বদল করেন আরেক বাংলাদেশের প্রথম সবাক চলচ্চিত্রের নায়িকা পূর্ণিমা সেনগুপ্তার মেয়ে চিত্রনায়িকা নাসরিনের সঙ্গে। সেই সংসারে রাতুল, সামী ও রাহুল নামে তিন পুত্র রয়েছে জসিমের।

জসিমের তিন পুত্র রাতুল, সামী ও রাহুলকে আগলে ধরে আছেন স্ত্রী নাসরিন। বাবার মৃত্যুর সময় ছোট ছেলে রাহুলের বয়স ছিল ছয় বছর। তিনি আজ ২৮ বছরের পরিণত যুব্ক। সংগীতে ক্যারিয়ার গড়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।

সেই ১৯৯৮ সালে সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিকে হারানোর পর তিন ছেলেকে আগলে রেখেছেন জসিমের স্ত্রী নাসরিন জসিম। স্বামী হারানোর শোক বুকে চেপে সন্তানদের নিয়ে পাড়ি দিয়েছেন তিনি দীর্ঘ ২২টি বছর।

মিডিয়াতে কথা বলতে চান না নাসরিন। তার এক ঘনিষ্ট অভিনেত্রী জানান, সব রকম আলোচনা ও শোবিজ এড়িয়ে চলেন নাসরিন। তার ছেলেরাও খুব একটা মিডিয়া ঘেঁষা নয়। তবে নাসরিনের সঙ্গে সিনেমার পুরনো মানুষদের যোগাযোগ হয়। বেশ ভালোই আছেন তারা সবাই। সন্তানদের মানুষ করেছেন নাসরিন নিজের মতো করে।

জানা গেল, সিনেমায় নয়, জসিমের তিন ছেলেরই আগ্রহ গান-বাজনায়। তাদের মধ্যে বড় ছেলে সামি ও মেজ ছেলে রাতুল দুই ভাই মিলে ব্যান্ডদলও গঠন করেছেন একটি। মিউজিশিয়ান হওয়ার স্বপ্ন দেখা সামি তার ভাইসহ ৫ জন সদস্য নিয়ে ২০০৭ সালে ব্যান্ডদল ‘ওন্ড’ (Owned) তৈরি করেন। পরে ২০১১ সাল থেকে নতুনভাবে ৪ সদস্য নিয়ে যাত্রা শুরু করে দলটি।

‘ওন্ড’ ব্যান্ডের প্রথম অ্যালবাম ‘ওয়ান’ প্রকাশ হয়েছিল ২০১৪ সালে। দ্বিতীয় অ্যালবাম ‘টু’ প্রকাশ হয়েছিল ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে। এই ব্যান্ডে সামি ড্রামার হিসেবে আছেন। আর রাতুল বেজ গিটার বাজানোর পাশাপাশি কণ্ঠও দেন। দলনেতা সামি।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*