‘লাইফ পার্টনার’ হলেন অপূর্ব-মেহজাবিন


অভিনেতা অপূর্ব ও মেহজাবিন এবার পার্টনার হচ্ছেন। তবে কোনও ব্যবসায়িক পার্টনার নয়, লাইফ পার্টনার! সেটাও আবার বাস্তবে নয়, নাটকে। নাটকটির নাম ‘পার্টনার’।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) সূত্রে জানা গেছে, গাড়ির নম্বর নির্ধারণ করার জন্য বিআরটিএ- এর একটি নির্দিষ্ট ফরম্যাট রয়েছে। শহরের নাম- গাড়ির ক্যাটাগরি ও গাড়ির নম্বর। এই ফরম্যাটের মাঝের অংশে গাড়ির ক্যাটাগরি বুঝাতে বাংলা বর্ণগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

আরিফুল ইসলাম পাঠকের চিত্রনাট্যে সিএমভি’র ব্যানারে এটি নির্মাণ করেছেন মেহেদী হাসান জনি।

‘পার্টনার’এর অপূর্ব ও মেহজাবীন একই মহল্লার বাসিন্দা। যদিও সড়কে তাদের পরিচয় ঘটে ভয়ংকর তিক্ত অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে। এবং নাটকের প্রায় পুরোটাজুড়েই চলতে থাকে সেই তিক্ততার রেশ।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) সূত্রে জানা গেছে, গাড়ির নম্বর নির্ধারণ করার জন্য বিআরটিএ- এর একটি নির্দিষ্ট ফরম্যাট রয়েছে। শহরের নাম- গাড়ির ক্যাটাগরি ও গাড়ির নম্বর। এই ফরম্যাটের মাঝের অংশে গাড়ির ক্যাটাগরি বুঝাতে বাংলা বর্ণগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

কাজটি প্রসঙ্গে অপূর্ব বলেন ‘গল্পটি বেশ মজার। চূড়ান্ত তিক্ত অভিজ্ঞতার মধ্যদিয়ে দুজন মানুষের চরম মিষ্টি সম্পর্কে পৌঁছানোর গল্প এটি। দর্শকরা আনন্দ পাবেন।’

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) সূত্রে জানা গেছে, গাড়ির নম্বর নির্ধারণ করার জন্য বিআরটিএ- এর একটি নির্দিষ্ট ফরম্যাট রয়েছে। শহরের নাম- গাড়ির ক্যাটাগরি ও গাড়ির নম্বর। এই ফরম্যাটের মাঝের অংশে গাড়ির ক্যাটাগরি বুঝাতে বাংলা বর্ণগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

পরিচালক জনির বলেন, ‘শত্রু থেকে বন্ধুত্ব হওয়ার গল্প এটি। আমি চেয়েছি নতুন ধারার গল্প বলতে। বাকিটা দর্শকরা বিচার করবেন।’

‘পার্টনার’ প্রযোজক এসকে সাহেদ আলী পাপ্পু জানান, ১১ ডিসেম্বর নাটকটি প্রচার হবে আরটিভিতে। পরে সিএমভি’র ইউটিউব চ্যানেলে দেখা যাবে নাটকটি।


Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*